Daily Natun Sangbad
Bongosoft Ltd.
ঢাকা শুক্রবার, ২১ জুন, ২০২৪, ৮ আষাঢ় ১৪৩১

গুলশানে স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতার ফিল্মি স্টাইলে গুলি

দৈনিক নতুন সংবাদ | নিজস্ব প্রতিবেদক : জানুয়ারি ১৬, ২০২৩, ০১:৩৩ এএম গুলশানে স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতার ফিল্মি স্টাইলে গুলি

রাজধানীর গুলশানে ফিল্মি স্টাইলে গুলি চালিয়ে এক পথচারী এবং এক রিকশাচালককে গুলিবিদ্ধ করেছেন ঢাকা মহানগর উত্তর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সহসভাপতি আবদুল ওয়াহিদ মিন্টু। রোববার (১৫ জানুয়ারি) বেলা সাড়ে তিনটার দিকে গুলশান-১ নম্বর গোলচত্বরের কাছে গ্লোরিয়া জিন্স কফি শপের সামনে গুলিবর্ষণের এ ঘটনা ঘটে।

গুলিবিদ্ধ পথচারী আমিনুল ইসলাম এবং ভ্যানচালক আবদুর রহিম মিয়াকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।  ঘটনায় জড়িত স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতাকে আটক এবং তাঁর লাইসেন্স করা পিস্তলটি জব্দ করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা আবদুল ওয়াহিদের দুই সহযোগী মো. আরিফ হোসেন (২৪) ও মনির আহমেদকেও (৩৫) আটক করা হয়েছে। এছাড়া মুঠোফোনে আর্থিক সেবাদাতা দোকানমালিক হাবিবুর রহমান আলিম (৩৫) এবং স্থানীয় দোকানি মো. খলিল খানকেও (১৮) আটক করেছে পুলিশ।

সংশ্লিষ্ট পুলিশ কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, আরিফ হোসেন ওমানপ্রবাসী। তিনি গুলশানের আলফা জেনারেল স্টোরে এসে মুঠোফোন আর্থিক সেবা ব্যবহার করে একটি নম্বরে কয়েক ধাপে মোট ৭৫ হাজার টাকা পাঠান। টাকা নগদ পরিশোধ করতে না পারায় দোকানি হাবিবুর রহমান তাঁকে দোকানে আটকে রাখেন। খবর পেয়ে আরিফকে ছাড়িয়ে নিতে তাঁর ভগ্নিপতি মনির হোসেন ও স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা আবদুল ওয়াহিদ গুলশান-১–এ ঘটনাস্থলের পাশে গ্লোরিয়া জিন্স নামের একটি কফির দোকানে আসেন। একপর্যায়ে তাঁদের দুজনকেও আটকাতে যান দোকানি হাবিবুর ও তাঁর পরিচিত দোকানিরা। এ সময় নিজের লাইসেন্সকৃত পিস্তল থেকে গুলি করেন আবদুল ওয়াহিদ। এতে রাস্তায় থাকা একজন পথচারী ও একজন ভ্যানচালক গুলিবিদ্ধ হন। গুলিবিদ্ধ আমিনুল ইসলাম একজন গাড়িচালক। তাঁকে গুলশানের ইউনাইটেড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আর ভ্যানচালক আবদুর রহিমকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

স্থানীয় দোকানিদের বরাত দিয়ে কয়েকজন প্রত্যক্ষদর্শী জানান, স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা আবদুল ওয়াহিদ ঘটনাস্থলে এসে আরিফকে ছাড়িয়ে নেওয়ার চেষ্টা করেন। দোকানিরা তাঁকে বাধা দিলে তিনি পিস্তল বের করে ফাঁকা গুলি করেন। এ সময় কয়েকজন দোকানিকেও লক্ষ্য করে গুলি করতে উদ্ধত হন তিনি। একপর্যায়ে দোকানিরা তাঁকে ধাওয়া করেন। এ সময় তাঁর ছোড়া গুলিতে দুজন আহত হন।

পুলিশ জানায়, পিস্তলটি স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা আবদুল ওয়াহিদের নামে লাইসেন্স করা। তিনি ২০১৬ সালে এই অস্ত্রের লাইসেন্স পান। মেয়াদ শেষে ২০২১ সালে আবারও লাইসেন্সটি নবায়ন করেন তিনি। এ ঘটনায় ১টি পিস্তল, ১৬টি গুলি, ৩টি গুলির খোসা ও ৪টি ম্যাগাজিন উদ্ধার করা হয়েছে।###

Side banner