Daily Natun Sangbad
Bongosoft Ltd.
ঢাকা রবিবার, ২১ এপ্রিল, ২০২৪, ৮ বৈশাখ ১৪৩১

ফুটবল কিংবদন্তী পেলে আর নেই

দৈনিক নতুন সংবাদ ডিসেম্বর ৩০, ২০২২, ০১:১৫ এএম ফুটবল কিংবদন্তী পেলে আর নেই

জীবন-মৃত্যুর লড়াইয়ে হেরে গেলেন  ফুটবল কিংবদন্তি পেলে। ৮২ বছর বয়সে সাও পাওলোর আলবার্ট আইনস্টাইন হাসপাতালে বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত একটায় শেষ নি:শ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। বার্তা সংস্থা রয়টার্স এ তথ্য জানায়।

পেলের চলে যাওয়ায় সারাবিশ্বে নেমেছে শোকের ছায়া। মানুষ কাঁদছে প্রিয় কালো মানিকের জন্যে।

বৃহস্পতিবার রাতে ইনস্টাগ্রাম পোস্টেই পেলের মেয়ে কেলি নাসিমেন্তো জানান, ‘আমাদের সকল কিছুর জন্য তোমাকে ধন্যবাদ। আমরা তোমাকে অসীমের চেয়েও বেশি ভালবাসি। বিদায়।’ গত নভেম্বর মাস থেকেই এই হাসপাতালে চিকিৎসাধিন ছিলেন সর্বকালের সেরা এই ফুটবলার।

দীর্ঘদিন কিডনি এবং প্রোস্টেট ক্যান্সারে আক্রান্ত ছিলেন তিনি। হাসপাতাল থেকে পেলের মেয়ে কেলি নাসিমেন্তো নিয়মিত তাঁর চিকিৎসার আপডেট জানাতেন। চারদিন আগেও হাসপাতাল থেকে বড়দিন যাপনের ছবি প্রকাশ করেছিলেন কেলি।

ফুটবল ইতিহাসে একমাত্র খেলোয়াড় হিসেবে তিনটি বিশ্বকাপ জয় করেছেন তিনি। ক্লাব ও আন্তর্জাতিক ফুটবলের ২১ বছরের দীর্ঘ ক্যারিয়ারে ১৩৬৩টি ম্যাচ খেলে ১২৮১ গোলের বিরল রেকর্ড রয়েছে পেলের।

১৯৪০ সালের ২৩ অক্টোবর ব্রাজিলের ত্রেস কোরাকোয়েস শহরের এক বস্তিতে জন্মগ্রহণ করেন ‘এডসন অ্যারান্টিস দো নাসিমেন্ত’।

দরিদ্র কৃষ্ণাঙ্গ পরিবারের প্রথম সন্তান হিসেবে পরিবারের অভাব অনটন মেটানোর জন্য ছেলেবেলাতেই পেলেকে চায়ের দোকানে কাজ করতে হয়েছিল। এছাড়া রেলস্টেশন ঝাড়ু দেওয়ার পাশাপাশি কিছুদিন জুতা পরিষ্কারের কাজও করেছিলেন।

ছোটবেলা থেকেই ফুটবলার হওয়ার স্বপ্ন ছিল পেলের। গলির ফুটবলেই প্রতিভার প্রথম দেখা পাওয়া যায় পেলের। যে প্রতিভা চোখে পড়ে সান্তোসের  গ্রেট ওয়ালডেমার ডি ব্রিটোর। বস্তির খেলোয়াড় থেকে ফুটবলার হয়ে উঠার শুরু হয় সেখান থেকেই। ১৫ বছর বয়সেই পেলেকে সান্তোসের ‘বি’ দলে যোগ দেয়ান ব্রিটো। এখানেও সহজাত প্রতিভার স্ফুরণে এখান থেকে এক বছরের মধ্যেই জায়গা করে নেন মূল দলে। ১৬ বছর বয়সে পেলে’র সান্তোসের মূল দলে অভিষেক হয়। সেবার ব্রাজিলের পেশাদার ফুটবল লীগে স্যান্টোসের হয়ে লীগের সর্বোচ্চ গোলদাতা হয়েছিলেন তিনি। আর পেছন ফিরে তাকাতে হয় নি সর্বকালের সেরা এই ফুটবলারকে।

১৯৫৭ সালের ৭ জুলাই ব্রাজিলের হয়ে পেলের আন্তর্জাতিক ফুটবলে অভিষেক হয় চিরপ্রতিদ্বন্ধী আর্জেন্টিনার বিপক্ষে। সেই ম্যাচে ব্রাজিল আর্জেন্টিনার কাছে ২-১ গোলের ব্যবধানে হেরে গেলেও প্রথম ম্যাচেই বিশ্ব রেকর্ডটি করতে ভুল করেনটি পেলে। ১৬ বছর ৯ মাস বয়সে গোল করে আন্তর্জাতিক ফুটবলে সবচেয়ে কম বয়সী হিসেবে গোলদাতার রেকর্ড করেন ফুটবলের বরপুত্র।

ব্রাজিল দলে সুযোগ পাওয়ার পরের বছরই ডাক পান বিশ্বকাপের দলেও। ১৯৫৮ সালের বিশ্বকাপে সোভিয়েত ইউনিয়নের বিপক্ষে পেলের অভিষেক ঘটে। ম্যাচটি ছিল ১৯৫৮ বিশ্বকাপের তৃতীয় খেলা। ১ম রাউন্ডের খেলায় পেলে গোল করতে না পারলেও শেষ মুহূর্তে এসে পেলে ঠিকই জ্বলে উঠেন। কোয়ার্টার ফাইনালের ওই ম্যাচে ওয়েলসের বিপক্ষে পেলের করা গোলে ব্রাজিল সেমিফাইনাল নিশ্চিত করে। পরবর্তীতে ব্রাজিল প্রথম বিশ্বকাপ জয় করে। কোয়ার্টার ফাইনালে করা সেই গোলটিও ছিল রেকর্ডের। বিশ্বকাপের ইতিহাসে সর্বকনিষ্ঠ খেলোয়াড় হিসেবে করা গোলের রেকর্ড। ১৯৫৮ সালের বিশ্বকাপ ফাইনালে জোড়া গোল করে ব্রাজিলের প্রথম বিশ্বকাপ জয়ের নায়ক বনে যান ১৭ বছর বয়সী পেলে।

১৯৫৮, ১৯৬২, ১৯৬৬ ও ১৯৭০ এর বিশ্বকাপে অংশ নিয়ে তিনবার (১৯৫৮, ১৯৬২ ও ১৯৭০) সালে বিশ্বকাপ জয়ের গৌরব অর্জন করেন। ১৯৭০ সালের বিশ্বকাপে ব্রাজিলের সর্বকালের সেরা দলটির সদস্য হিসেবে পেলে জিতেন তাঁর তৃতীয় বিশ্বকাপ শিরোপা। তিনবারের মতো বিশ্বকাপ জিতে সেবার জুলে রিমে ট্রফিকে নিজের করে নেয় ব্রাজিল। ব্যক্তিগত জীবনে একাধিক বিয়ে করেছিলেন ব্রাজিলিয়ান এই কিংবদন্তি। ###

Side banner